ঢাকা ০৭:২৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
পাঁচবিবিতে কোকতারা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে জানালার গ্রিল ভেঙ্গে দুধর্ষ চুরি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাক্টর দূর্ঘটনায় নিহত ২ পাঁচবিবিতে বুড়াবুড়ির মাজারে ২৫তম বাৎসরিক ওয়াজ মাহফিলের প্রস্তুতি সভা হিলি সীমান্তে দুই বাংলার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হরিপুরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত পাঁচবিবিতে নির্বাচনী মাঠে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোছাঃ রেবেকা সুলতানা বিরামপুরে সমতল ভূমিতে বসবাসরত ৩৫০ ক্ষুদ্র নৃ- গোষ্ঠীর মাঝে বিনামূল্যে মুরগি বিতরণ পাঁচবিবিতে আবু হোসাইন হত্যা মামলায় মা-ছেলেসহ ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড পাঁচবিবিতে বন্ধুত্বের মিলন মেলা-৯০ অনুষ্ঠিত হিলিতে দিনব্যাপি পণ্য প্রদর্শর্নী ও পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত

এক দিনেই এলো হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ৬৫ হাজার ৮৫৫ কেজি কাঁচা মরিচ

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১০:১৮:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৭ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৮৬১ বার পড়া হয়েছে

মোঃ রাকিব হাসান ডালিম, হাকিমপুর হিলি প্রতিনিধি

এক দিনেই দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ৬৫ হাজার ৮৫৫ কেজি কাঁচা মরিচ আমদানি হয়েছে।
বুধবার (১৬ আগস্ট) সন্ধ্যা পর্যন্ত ভারতীয় ৯টি ট্রাকে বন্দর দিয়ে এসব কাঁচ মরিচ আমদানি করা হয়। এতে কমতে শুরু করেছে কাঁচা মরিচের ঝাঁজ।চাহিদার তুলনায় সরবরাহ বাড়ায় কাঁচা মরিচের দাম কেজিতে ৫০ টাকা করে কমেছে। দুদিন আগেও বন্দরে প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা বিক্রি হলেও বর্তমানে তা কমে ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। দাম কমায় খুশি বন্দরে কাঁচা মরিচ কিনতে আসা পাইকারসহ নিম্নআয়ের মানুষ।
হিলি স্থলবন্দরে কাঁচামরিচ কিনতে আসা মোস্তফা হোসেন বলেন,দেশীয় কাঁচামরিচের দাম বৃদ্ধির কারণে দেশের বাজারে আমদানিকৃত ভারতীয় কাঁচা মরিচের চাহিদা রয়েছে। সেই কারণে আমরা হিলি স্থলবন্দর থেকে কাঁচামরিচ ক্রয় করে নিয়মিত রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করে আসছিলাম। বন্দর দিয়ে ভারত থেকে পর্যাপ্ত পরিমাণে কাঁচা মরিচ আমদানির ফলে দাম স্থিতিশীল পর্যায়ে ছিল। আমদানিকৃত কাঁচা মরিচের দাম ১০০ টাকার মধ্যেই ছিল কিন্তু হঠাৎ করে গত সপ্তাহ থেকে কাঁচামরিচের দাম ঊর্ধ্বমুখী হতে শুরু করে। দাম বাড়তে বাড়তে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায় উঠে যায়। বাড়তি দামের কারণে আমাদের কাঁচা মরিচ কিনতে বিপাকের মধ্যে পড়তে হচ্ছিল। বর্তমানে কাঁচা মরিচের আমদানি বেড়েছে, তেমনি দাম কমে এসেছে। যার কারণে আমাদের যেমন কিনতে সুবিধা হচ্ছে। তেমনি মোকামে চাহিদামত পাঠাতে পারছি, তেমনি ক্রেতারাও কম দামে কাঁচা মরিচ কিনতে পারছে।
হিলি স্থলবন্দরের কাঁচা মরিচ আমদানিকারক আনোয়ার হোসেন বলেন, আমদানির অনুমতি পাওয়ার পর থেকেই দেশের বাজারে কাঁচা মরিচের সরবরাহ স্বাভাবিক ও দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে ভারত থেকে কাঁচামরিচ আমদানি অব্যাহত রেখেছেন বন্দরের আমদানিকারকরা। সম্প্রতি দুই-তিন দিন ভারতে প্রচুর পরিমাণে বৃষ্টিপাত হওয়ায় কৃষকরা ওই সময়ে ক্ষেত থেকে কাঁচা মরিচ তুলতে পারেননি।যার কারণে ভারতের মোকামে কাঁচামরিচের সরবরাহ কমায় দাম ঊর্ধ্বমুখীর সঙ্গে সঙ্গে বন্দর দিয়ে আমদানি অনেকটা কমে যায়।এতে দেশের বাজারে চাহিদার তুলনায় পণ্যটির সরবরাহ কমায় কাঁচামরিচের দাম ঊর্ধ্বমুখী হয়। তবে বর্তমানে আবহাওয়া ভালো হওয়ায় কৃষকরা ক্ষেত থেকে কাঁচা মরিচ তুলতে শুরু করেছেন। যার কারণে ভারতের বাজারে কাঁচা মরিচের সরবরাহ অনেকটা বেড়েছে, তেমনি দাম কমেছে। সেই সঙ্গে বন্দর দিয়ে কাঁচা মরিচের আমদানি আগের তুলনায় বেড়েছে।শুধু হিলি স্থলবন্দর দিয়ে নয়, দেশের সবগুলো স্থলবন্দর দিয়েই ভারত থেকে প্রচুর পরিমাণে কাঁচা মরিচ আমদানি অব্যাহত রয়েছে। যার কারণে দেশের বাজারে আবারো দাম কমতে শুরু করেছে।
হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন প্রতাব মল্লিক জানান,বেশ কিছুদিন ধরেই হিলি স্থলবন্দর দিয়ে কাঁচামরিচ আমদানি অব্যাহত রয়েছে।তবে মঙ্গলবার জাতীয় শোক দিবসের ছুটির কারণে একদিন বন্ধের পর বুধবার (১৬ আগস্ট) বন্দর দিয়ে দু’দেশের মাঝে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য শুরু হয়। এক দিনেই বন্দর দিয়ে ৯টি ট্রাকে ৬৫ হাজার ৮৫৫ কেজি কাঁচা মরিচ আমদানি হয়।কাঁচা মরিচ যেহেতু একটি কাঁচাপণ্য গরমে ও বৃষ্টিতে পচে নষ্ট হয়। যার কারণে কাস্টমসের সকল প্রক্রিয়া শেষে দ্রুত যেন তারা বন্দর থেকে খালাস করে নিতে পারে বন্দর কর্তৃপক্ষ তার সবধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করে রেখেছে।
প্রসঙ্গত, দেশে কাঁচা মরিচের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে উঠলে গত ২৫ জুন কাঁচামরিচ আমদানির অনুমতি দেয় সরকার। এর ফলে দীর্ঘ ১০ মাস বন্ধের পর গত ২৬ জুন ভারত থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি শুরু হয়। হিলি স্থলবন্দরের কয়েকজন আমদানিকারক বেশ কয়েক হাজার টন কাঁচা মরিচ আমদানির অনুমতি পেয়েছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

এক দিনেই এলো হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ৬৫ হাজার ৮৫৫ কেজি কাঁচা মরিচ

আপডেট সময় : ১০:১৮:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৭ অগাস্ট ২০২৩

মোঃ রাকিব হাসান ডালিম, হাকিমপুর হিলি প্রতিনিধি

এক দিনেই দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ৬৫ হাজার ৮৫৫ কেজি কাঁচা মরিচ আমদানি হয়েছে।
বুধবার (১৬ আগস্ট) সন্ধ্যা পর্যন্ত ভারতীয় ৯টি ট্রাকে বন্দর দিয়ে এসব কাঁচ মরিচ আমদানি করা হয়। এতে কমতে শুরু করেছে কাঁচা মরিচের ঝাঁজ।চাহিদার তুলনায় সরবরাহ বাড়ায় কাঁচা মরিচের দাম কেজিতে ৫০ টাকা করে কমেছে। দুদিন আগেও বন্দরে প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা বিক্রি হলেও বর্তমানে তা কমে ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। দাম কমায় খুশি বন্দরে কাঁচা মরিচ কিনতে আসা পাইকারসহ নিম্নআয়ের মানুষ।
হিলি স্থলবন্দরে কাঁচামরিচ কিনতে আসা মোস্তফা হোসেন বলেন,দেশীয় কাঁচামরিচের দাম বৃদ্ধির কারণে দেশের বাজারে আমদানিকৃত ভারতীয় কাঁচা মরিচের চাহিদা রয়েছে। সেই কারণে আমরা হিলি স্থলবন্দর থেকে কাঁচামরিচ ক্রয় করে নিয়মিত রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করে আসছিলাম। বন্দর দিয়ে ভারত থেকে পর্যাপ্ত পরিমাণে কাঁচা মরিচ আমদানির ফলে দাম স্থিতিশীল পর্যায়ে ছিল। আমদানিকৃত কাঁচা মরিচের দাম ১০০ টাকার মধ্যেই ছিল কিন্তু হঠাৎ করে গত সপ্তাহ থেকে কাঁচামরিচের দাম ঊর্ধ্বমুখী হতে শুরু করে। দাম বাড়তে বাড়তে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায় উঠে যায়। বাড়তি দামের কারণে আমাদের কাঁচা মরিচ কিনতে বিপাকের মধ্যে পড়তে হচ্ছিল। বর্তমানে কাঁচা মরিচের আমদানি বেড়েছে, তেমনি দাম কমে এসেছে। যার কারণে আমাদের যেমন কিনতে সুবিধা হচ্ছে। তেমনি মোকামে চাহিদামত পাঠাতে পারছি, তেমনি ক্রেতারাও কম দামে কাঁচা মরিচ কিনতে পারছে।
হিলি স্থলবন্দরের কাঁচা মরিচ আমদানিকারক আনোয়ার হোসেন বলেন, আমদানির অনুমতি পাওয়ার পর থেকেই দেশের বাজারে কাঁচা মরিচের সরবরাহ স্বাভাবিক ও দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে ভারত থেকে কাঁচামরিচ আমদানি অব্যাহত রেখেছেন বন্দরের আমদানিকারকরা। সম্প্রতি দুই-তিন দিন ভারতে প্রচুর পরিমাণে বৃষ্টিপাত হওয়ায় কৃষকরা ওই সময়ে ক্ষেত থেকে কাঁচা মরিচ তুলতে পারেননি।যার কারণে ভারতের মোকামে কাঁচামরিচের সরবরাহ কমায় দাম ঊর্ধ্বমুখীর সঙ্গে সঙ্গে বন্দর দিয়ে আমদানি অনেকটা কমে যায়।এতে দেশের বাজারে চাহিদার তুলনায় পণ্যটির সরবরাহ কমায় কাঁচামরিচের দাম ঊর্ধ্বমুখী হয়। তবে বর্তমানে আবহাওয়া ভালো হওয়ায় কৃষকরা ক্ষেত থেকে কাঁচা মরিচ তুলতে শুরু করেছেন। যার কারণে ভারতের বাজারে কাঁচা মরিচের সরবরাহ অনেকটা বেড়েছে, তেমনি দাম কমেছে। সেই সঙ্গে বন্দর দিয়ে কাঁচা মরিচের আমদানি আগের তুলনায় বেড়েছে।শুধু হিলি স্থলবন্দর দিয়ে নয়, দেশের সবগুলো স্থলবন্দর দিয়েই ভারত থেকে প্রচুর পরিমাণে কাঁচা মরিচ আমদানি অব্যাহত রয়েছে। যার কারণে দেশের বাজারে আবারো দাম কমতে শুরু করেছে।
হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন প্রতাব মল্লিক জানান,বেশ কিছুদিন ধরেই হিলি স্থলবন্দর দিয়ে কাঁচামরিচ আমদানি অব্যাহত রয়েছে।তবে মঙ্গলবার জাতীয় শোক দিবসের ছুটির কারণে একদিন বন্ধের পর বুধবার (১৬ আগস্ট) বন্দর দিয়ে দু’দেশের মাঝে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য শুরু হয়। এক দিনেই বন্দর দিয়ে ৯টি ট্রাকে ৬৫ হাজার ৮৫৫ কেজি কাঁচা মরিচ আমদানি হয়।কাঁচা মরিচ যেহেতু একটি কাঁচাপণ্য গরমে ও বৃষ্টিতে পচে নষ্ট হয়। যার কারণে কাস্টমসের সকল প্রক্রিয়া শেষে দ্রুত যেন তারা বন্দর থেকে খালাস করে নিতে পারে বন্দর কর্তৃপক্ষ তার সবধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করে রেখেছে।
প্রসঙ্গত, দেশে কাঁচা মরিচের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে উঠলে গত ২৫ জুন কাঁচামরিচ আমদানির অনুমতি দেয় সরকার। এর ফলে দীর্ঘ ১০ মাস বন্ধের পর গত ২৬ জুন ভারত থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি শুরু হয়। হিলি স্থলবন্দরের কয়েকজন আমদানিকারক বেশ কয়েক হাজার টন কাঁচা মরিচ আমদানির অনুমতি পেয়েছেন।