ঢাকা ০৯:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
হিলিতে আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের ২১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন বিরামপুরে ধান, চাল ও গম ক্রয়ের শুভ উদ্বোধন করেন শিবলী সাদিক এমপি হোটেলে খেতে গিয়ে দায়িত্ব হারালেন প্রিজাইডিং কর্মকর্তা পাঁচবিবিতে খরায় লিচুর ফলন হ্রাস,বাগান মালিকের মাথায় হাত পাঁচবিবিতে ট্রাইকো কম্পোস্ট সার বাজারজাতকরণে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত আত্মসমর্পণের পর কারাগারে বিএনপি নেতা ইশরাক দুর্ঘটনার কবলে ইরানের প্রেসিডেন্টকে বহনকারী হেলিকপ্টার অবৈধ জুস তৈরির কারখানায় অভিযান, ১০ লাখ টাকা জরিমানা দেশ এখন মগের মুল্লুকে পরিণত হয়েছে : মির্জা ফখরুল ‘ভারত-চীনকে যুক্ত করতে পারলেই রোহিঙ্গা সংকট সমাধান সম্ভব’

জয় দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু বাংলাদেশের

স্পোর্টস ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৪:৫৭:৩৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ৭ অক্টোবর ২০২৩
  • / ৪০০ বার পড়া হয়েছে

বল হাতে ব্যাটারদের জন্য কাজটা আগেই সহজ করে রেখেছিলেন বাংলাদেশের বোলাররা। লাল-সবুজের বোলারদের আধিপত্যের দিনে মাত্র ১৫৬ রানের মধ্যেই গুঁটিয়ে যায় আফগানিস্তান। এরপর রয়েসয়েই বাকিটা সেরেছেন লাল-সবুজের ব্যাটাররা। মেহেদী হাসান মিরাজ ও নাজমুল হোসেন শান্তর সাবলীল ব্যাটিংয়ে রশিদ-নবিদের বিপক্ষে ৯৯ বল বাকি থাকতেই ৬ উইকেটের দাপুটে জয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করলো সাকিব আল হাসানের দল।

আফগানদের দেওয়া ১৫৭ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় বাংলাদেশ। লিটনের সঙ্গে ভুল বুঝাবুঝিতে রান-আউটের ফাঁদে কাটা পড়েন তানজিদ। জাদরানের সরাসরি থ্রোয়ে বিদায়ের আগে ১২ বলে ৫ রান করেন তরুণ এই ওপেনার।

এরপর ক্রিজে আসেন মেহেদি হাসান মিরাজ। তবে ইনিংসের সপ্তম ওভারে বোলিংয়ে এসে আফগানদের আবারও সাফল্য এনে দেন ফারুকি। দলীয় ২৭ রানে ১৮ বলে ১৩ রান করা লিটনকে আউট করেন বাঁহাতি এই ব্যাটার।

লিটনের বিদায়ের পর ক্রিজে আসেন নাজমুল হোসেন শান্ত। তৃতীয় উইকেট জুটিতে মিরাজকে সঙ্গে নিয়ে শুরুর ধাক্কা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন তিনি। সাবলীল ব্যাটিংয়ে ৫৮ বলে ফিফটি তুলে নেন মিরাজ। অন্যদিকে তাকে যোগ্য সঙ্গ দেন শান্ত। তবে প্রথমবারের মতো তিনে নেমে ব্যক্তিগত অর্ধশতক হাঁকানোর পরই ব্যক্তিগত ৫৭ রানে বিদায় নেন মিরাজ।এর আগে, ধর্মশালায় হিমাচল ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে টসে হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে দারুণ শুরু করেন আফগানিস্তানের দুই ওপেনার রহমানুল্লাহ গুরবাজ ও ইব্রাহিম জাদরান। তবে দলীয় পঞ্চাশে আগেই আফগানদের ওপেনিং জুটি ভাঙেন সাকিব আল হাসান। নবম ওভারে সাকিবের বলে তানজিদের হাতে ক্যাচে দিয়ে বসেন জাদরান। সাজঘরে ফেরার আগে ২২ রান করেন ডানহাতি এই ব্যাটার।

এরপর রহমত শাহকে নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলেন গুরবাজ। কিন্তু আফগান শিবিরে আবারও আঘাত হানেন সাকিব। ১৬তম ওভারের প্রথম বলে কাভারে লিটনের হাতে ক্যাচ তুলে দেন রহমত। ২৫ বলে ১৮ রান করে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন তিনি।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে গুরবাজের সঙ্গে আফগানদের টেনে নেওয়ার চেষ্টা করেন অধিনায়ক শহীদি। ৩৯ রানের জুটি গড়ে চাপ শামাল দেওয়ার চেষ্টা করছিলেন তারা। তবে এই জুটি ভাঙেন অফ-স্পিনার মিরাজ।

মিরাজের অফ-স্টাম্পের বাইরের বল টেনে মারতে চেয়েছিলেন শহীদি। তবে প্লেসমেন্টটা ঠিকঠাক না হওয়ায় ৩৮ বলে ১৮ রানে তাওহিদ হৃদয়ের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন আফগান দলপতি।

পরের ওভারেই আরেকটি সাফল্য পায় বাংলাদেশ। এবার ওপেনার গুরবাজকে ফেরান মুস্তাফিজ। অফ-স্টাম্পের বাইরে ড্রাইভ করতে চেয়েছিলেন এই ব্যাটার। তবে ক্যাচ উঠে ডিপ-পয়েন্টে। আর তা তালুবন্দি করতে ভুল করেননি তানজিদ। ৪ চার ও এক ছক্কায় ৪৭ রানে ফেরেন এই ওপেনার।

এরপর দ্রুতই নাজিবুল্লাহ জাদরানকেও ফেরায় বাংলাদেশ। এরপর দায়িত্ব নিতে পারেননি নবিও। পরে আর প্রতিরোধ করতে পারেননি কোনো আফগান ব্যাটারই।

শেষ দিকে আজমতুল্লাহ ওমরজাইয়ের ৪ বাউন্ডারিতে ২২ এবং রশিদের ৯ রানের সুবাদে ৩৭ দশমিক ২ ওভারে ১৫৬ রানের পুঁজি পায় আফগানরা।

বাংলাদেশের হয়ে মিরাজ ও সাকিবের শিকার তিনটি করে উইকেট। এ ছাড়া শরিফুল দুটি এবং তাসকিন ও মুস্তাফিজ একটি করে উইকেট নিয়েছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

জয় দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু বাংলাদেশের

আপডেট সময় : ০৪:৫৭:৩৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ৭ অক্টোবর ২০২৩

বল হাতে ব্যাটারদের জন্য কাজটা আগেই সহজ করে রেখেছিলেন বাংলাদেশের বোলাররা। লাল-সবুজের বোলারদের আধিপত্যের দিনে মাত্র ১৫৬ রানের মধ্যেই গুঁটিয়ে যায় আফগানিস্তান। এরপর রয়েসয়েই বাকিটা সেরেছেন লাল-সবুজের ব্যাটাররা। মেহেদী হাসান মিরাজ ও নাজমুল হোসেন শান্তর সাবলীল ব্যাটিংয়ে রশিদ-নবিদের বিপক্ষে ৯৯ বল বাকি থাকতেই ৬ উইকেটের দাপুটে জয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করলো সাকিব আল হাসানের দল।

আফগানদের দেওয়া ১৫৭ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় বাংলাদেশ। লিটনের সঙ্গে ভুল বুঝাবুঝিতে রান-আউটের ফাঁদে কাটা পড়েন তানজিদ। জাদরানের সরাসরি থ্রোয়ে বিদায়ের আগে ১২ বলে ৫ রান করেন তরুণ এই ওপেনার।

এরপর ক্রিজে আসেন মেহেদি হাসান মিরাজ। তবে ইনিংসের সপ্তম ওভারে বোলিংয়ে এসে আফগানদের আবারও সাফল্য এনে দেন ফারুকি। দলীয় ২৭ রানে ১৮ বলে ১৩ রান করা লিটনকে আউট করেন বাঁহাতি এই ব্যাটার।

লিটনের বিদায়ের পর ক্রিজে আসেন নাজমুল হোসেন শান্ত। তৃতীয় উইকেট জুটিতে মিরাজকে সঙ্গে নিয়ে শুরুর ধাক্কা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন তিনি। সাবলীল ব্যাটিংয়ে ৫৮ বলে ফিফটি তুলে নেন মিরাজ। অন্যদিকে তাকে যোগ্য সঙ্গ দেন শান্ত। তবে প্রথমবারের মতো তিনে নেমে ব্যক্তিগত অর্ধশতক হাঁকানোর পরই ব্যক্তিগত ৫৭ রানে বিদায় নেন মিরাজ।এর আগে, ধর্মশালায় হিমাচল ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে টসে হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে দারুণ শুরু করেন আফগানিস্তানের দুই ওপেনার রহমানুল্লাহ গুরবাজ ও ইব্রাহিম জাদরান। তবে দলীয় পঞ্চাশে আগেই আফগানদের ওপেনিং জুটি ভাঙেন সাকিব আল হাসান। নবম ওভারে সাকিবের বলে তানজিদের হাতে ক্যাচে দিয়ে বসেন জাদরান। সাজঘরে ফেরার আগে ২২ রান করেন ডানহাতি এই ব্যাটার।

এরপর রহমত শাহকে নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলেন গুরবাজ। কিন্তু আফগান শিবিরে আবারও আঘাত হানেন সাকিব। ১৬তম ওভারের প্রথম বলে কাভারে লিটনের হাতে ক্যাচ তুলে দেন রহমত। ২৫ বলে ১৮ রান করে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন তিনি।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে গুরবাজের সঙ্গে আফগানদের টেনে নেওয়ার চেষ্টা করেন অধিনায়ক শহীদি। ৩৯ রানের জুটি গড়ে চাপ শামাল দেওয়ার চেষ্টা করছিলেন তারা। তবে এই জুটি ভাঙেন অফ-স্পিনার মিরাজ।

মিরাজের অফ-স্টাম্পের বাইরের বল টেনে মারতে চেয়েছিলেন শহীদি। তবে প্লেসমেন্টটা ঠিকঠাক না হওয়ায় ৩৮ বলে ১৮ রানে তাওহিদ হৃদয়ের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন আফগান দলপতি।

পরের ওভারেই আরেকটি সাফল্য পায় বাংলাদেশ। এবার ওপেনার গুরবাজকে ফেরান মুস্তাফিজ। অফ-স্টাম্পের বাইরে ড্রাইভ করতে চেয়েছিলেন এই ব্যাটার। তবে ক্যাচ উঠে ডিপ-পয়েন্টে। আর তা তালুবন্দি করতে ভুল করেননি তানজিদ। ৪ চার ও এক ছক্কায় ৪৭ রানে ফেরেন এই ওপেনার।

এরপর দ্রুতই নাজিবুল্লাহ জাদরানকেও ফেরায় বাংলাদেশ। এরপর দায়িত্ব নিতে পারেননি নবিও। পরে আর প্রতিরোধ করতে পারেননি কোনো আফগান ব্যাটারই।

শেষ দিকে আজমতুল্লাহ ওমরজাইয়ের ৪ বাউন্ডারিতে ২২ এবং রশিদের ৯ রানের সুবাদে ৩৭ দশমিক ২ ওভারে ১৫৬ রানের পুঁজি পায় আফগানরা।

বাংলাদেশের হয়ে মিরাজ ও সাকিবের শিকার তিনটি করে উইকেট। এ ছাড়া শরিফুল দুটি এবং তাসকিন ও মুস্তাফিজ একটি করে উইকেট নিয়েছেন।