ঢাকা ০৮:১১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জা.বি.র ছাত্র হৃদয় হত্যা ও লাশ গুমের ঘটনার অন্যতম আসামী শাহীন গ্রেফতার

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১২:৩৬:১৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ মে ২০২৩
  • / ৪৭৭ বার পড়া হয়েছে

দবিরুল ইসলাম পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধিঃ

আশুলিয়ার চাঞ্চল্যকর হৃদয় (২০) কে অপহরণের পর হত্য ও লাশ গুমের ঘটনার অন্যতম আসামী মোঃ শাহীন ওরফে বাবুকে নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর এলাকা হতে যৌথ অভিযানে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব- ৫, সিপিসি-৩ (জয়পুরহাট ক্যাম্প) এবং র‍্যাব-৪,সিপিসি-২
সাভার।

জয়পুরহাট র‍্যাব- ৫ ক্যাম্পের প্রেরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়,গত ০৮ মে ২০২৩ খ্রিঃ তারিখে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মোঃ হৃদয় (২০)
নিখোঁজ হলে তার পিতা ফজলুল মিয়া আশুলিয়া থানায় জিডি পূর্বক র‍্যাব-৪,সিপিসি-২ সাভার ক্যাম্প বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করে যে, তার ছেলে হৃদয়
(২০) কে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি অপহরণ করেছে এবং মুক্তির বিনিময়ে ৫০ লক্ষ টাকা দাবি করেছে। অন্যথায় ভিকটিমকে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করেছে। এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি র‍্যাব-৪,সিপিসি-২ সাভার এর গোয়েন্দা দল ভিকটিম হৃদয়ের অপহরণ রহস্য উদঘাটন, অপরাধীদের গ্রেপ্তার ও অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধারের লক্ষ্যে তৎক্ষণাৎ অভিযোগের ছায়াতদন্ত শুরু করে।
পরবর্তীতে র‍্যাব-৪,সিপিসি-২ সাভার এর গোয়েন্দা দল অপহরণকারী পরান,বাপ্পি ও তাদের অন্যান্য সহযোগীর বিষয়ে নিশ্চিত হয় এবং ১৮ মে ২০২৩ খ্রিঃ তারিখে হৃদয় অপহরণ ও হত্যাকান্ডের মূলহোতা পরাণকে গ্রেপ্তার করে। ধৃত আসামী পরাণ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে,তার সঙ্গীয় বাপ্পি,আকাশ ও শাহীন এর সহায়তায় ভিকটিম হৃদয়কে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। ধৃত আসামী পরাণ আরো জানায়,তারা দুইজন ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিল।

ধৃত আসামী পরাণ দরিদ্র হলেও তারা একই সাথে চলাফেরা করতেছিল। হৃদয়ের পারিবারিক অবস্থা ভালো থাকায় তাকে অপহরণ করে পরিবারের নিকট হতে মোটা টাকা দাবি করার পরিকল্পনা করে আসছিল। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ০৮ মে ২০২৩ খ্রিঃ তারিখে দুপুুরের খাবারের পর আড্ডা দেওয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে ভিকটিম হৃদয়কে আটকে রেখে ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন হতে তার বাবাকে ফোন করে ৫০ লক্ষ টাকা দাবি করে। দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হওয়ার পরেও মুক্তি পণের টাকা না পেয়ে আসামীরা সংঘবদ্ধভাবে ভিকটিমের মুখে বালিশ চাপা দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে সন্ধায় ভিকটিমের লাশ বস্তাবন্দী করে সুকৌশলে ঘটনাস্থল হতে রিকশা যোগে শ্রীপুর এলাকায় একটি পরিত্যক্ত ডোবায় ফেলে দিয়ে আসামীরা আত্নগোপন করে। এ তথ্যের ভিত্তিতে র‍্যাব সদর দপ্তর গোয়েন্দা শাখার সহযোগিতায় র‍্যাব-৪,সিপিসি-২ সাভার ও র‍্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট র‍্যাব ক্যাম্পের একটি চৌকস অপারেশনাল দলের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী অধিনায়ক সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ রফিকুল ইসলাম এর নেতৃত্বে আজ ১৯ মে শুক্রবার রাত ১২ টা ৩০ মিনিটে নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর থানার রামরায়পুর এলাকা হতে মোঃ শাহিন বাবু (২৬), পিতা- মোঃ মুসা আলী, সাং- ঘাটনগর মোল্লাপাড়া, থানা-পোরসা, জেলা- নওগাঁকে আটক করে। পরে গ্রেফতারকৃত আসামীকে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে র‍্যাব- ৪,সিপিসি-২ সাভার এর নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান জয়পুরহাট র‍্যাব- ৫ ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি অধিনায়ক সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ রফিকুল ইসলাম।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

জা.বি.র ছাত্র হৃদয় হত্যা ও লাশ গুমের ঘটনার অন্যতম আসামী শাহীন গ্রেফতার

আপডেট সময় : ১২:৩৬:১৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ মে ২০২৩

দবিরুল ইসলাম পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধিঃ

আশুলিয়ার চাঞ্চল্যকর হৃদয় (২০) কে অপহরণের পর হত্য ও লাশ গুমের ঘটনার অন্যতম আসামী মোঃ শাহীন ওরফে বাবুকে নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর এলাকা হতে যৌথ অভিযানে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব- ৫, সিপিসি-৩ (জয়পুরহাট ক্যাম্প) এবং র‍্যাব-৪,সিপিসি-২
সাভার।

জয়পুরহাট র‍্যাব- ৫ ক্যাম্পের প্রেরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়,গত ০৮ মে ২০২৩ খ্রিঃ তারিখে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মোঃ হৃদয় (২০)
নিখোঁজ হলে তার পিতা ফজলুল মিয়া আশুলিয়া থানায় জিডি পূর্বক র‍্যাব-৪,সিপিসি-২ সাভার ক্যাম্প বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করে যে, তার ছেলে হৃদয়
(২০) কে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি অপহরণ করেছে এবং মুক্তির বিনিময়ে ৫০ লক্ষ টাকা দাবি করেছে। অন্যথায় ভিকটিমকে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করেছে। এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি র‍্যাব-৪,সিপিসি-২ সাভার এর গোয়েন্দা দল ভিকটিম হৃদয়ের অপহরণ রহস্য উদঘাটন, অপরাধীদের গ্রেপ্তার ও অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধারের লক্ষ্যে তৎক্ষণাৎ অভিযোগের ছায়াতদন্ত শুরু করে।
পরবর্তীতে র‍্যাব-৪,সিপিসি-২ সাভার এর গোয়েন্দা দল অপহরণকারী পরান,বাপ্পি ও তাদের অন্যান্য সহযোগীর বিষয়ে নিশ্চিত হয় এবং ১৮ মে ২০২৩ খ্রিঃ তারিখে হৃদয় অপহরণ ও হত্যাকান্ডের মূলহোতা পরাণকে গ্রেপ্তার করে। ধৃত আসামী পরাণ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে,তার সঙ্গীয় বাপ্পি,আকাশ ও শাহীন এর সহায়তায় ভিকটিম হৃদয়কে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। ধৃত আসামী পরাণ আরো জানায়,তারা দুইজন ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিল।

ধৃত আসামী পরাণ দরিদ্র হলেও তারা একই সাথে চলাফেরা করতেছিল। হৃদয়ের পারিবারিক অবস্থা ভালো থাকায় তাকে অপহরণ করে পরিবারের নিকট হতে মোটা টাকা দাবি করার পরিকল্পনা করে আসছিল। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ০৮ মে ২০২৩ খ্রিঃ তারিখে দুপুুরের খাবারের পর আড্ডা দেওয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে ভিকটিম হৃদয়কে আটকে রেখে ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন হতে তার বাবাকে ফোন করে ৫০ লক্ষ টাকা দাবি করে। দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হওয়ার পরেও মুক্তি পণের টাকা না পেয়ে আসামীরা সংঘবদ্ধভাবে ভিকটিমের মুখে বালিশ চাপা দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে সন্ধায় ভিকটিমের লাশ বস্তাবন্দী করে সুকৌশলে ঘটনাস্থল হতে রিকশা যোগে শ্রীপুর এলাকায় একটি পরিত্যক্ত ডোবায় ফেলে দিয়ে আসামীরা আত্নগোপন করে। এ তথ্যের ভিত্তিতে র‍্যাব সদর দপ্তর গোয়েন্দা শাখার সহযোগিতায় র‍্যাব-৪,সিপিসি-২ সাভার ও র‍্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট র‍্যাব ক্যাম্পের একটি চৌকস অপারেশনাল দলের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী অধিনায়ক সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ রফিকুল ইসলাম এর নেতৃত্বে আজ ১৯ মে শুক্রবার রাত ১২ টা ৩০ মিনিটে নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর থানার রামরায়পুর এলাকা হতে মোঃ শাহিন বাবু (২৬), পিতা- মোঃ মুসা আলী, সাং- ঘাটনগর মোল্লাপাড়া, থানা-পোরসা, জেলা- নওগাঁকে আটক করে। পরে গ্রেফতারকৃত আসামীকে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে র‍্যাব- ৪,সিপিসি-২ সাভার এর নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান জয়পুরহাট র‍্যাব- ৫ ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি অধিনায়ক সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ রফিকুল ইসলাম।