ঢাকা ০২:৫৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
হিলি বন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ বিরামপুর উপজেলায় ১০৩ বছরের বৃদ্ধা স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র নিলেন নাতি বৌয়ের কাঁধে ভর করে কিশোর কিশোরীর উজ্জ্বল ভবিষ্যত ও আলোকিত জীবন হিলিতে চেয়ারম্যান কাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট এর উদ্বোধন জয়পুরহাটে পুলিশ সুপার ম্যারাথন ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত পাঁচবিবিতে কোকতারা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে জানালার গ্রিল ভেঙ্গে দুধর্ষ চুরি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাক্টর দূর্ঘটনায় নিহত ২ পাঁচবিবিতে বুড়াবুড়ির মাজারে ২৫তম বাৎসরিক ওয়াজ মাহফিলের প্রস্তুতি সভা হিলি সীমান্তে দুই বাংলার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হরিপুরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

তালতলীতে ধানের চারা রোপণ করে রাস্তা সংস্কারের আহ্বান

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৪:৪৩:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ৩৮৮ বার পড়া হয়েছে

 

মোঃ ইমরান হোসেন
বরগুনা জেলা প্রতিনিধিঃ

বরগুনার তালতলীতে সোনাকাটা ইউনিয়নের বড় আমখোলা এলাকার প্রায় ৫ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তায় চলাচলে মারাত্মক দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে কয়েক হাজার মানুষ। দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাটি পাকা করার দাবি জানালেও কোনো লাভ হয়নি। এজন্য রাস্তা পাকা না হওয়ার কারণে ধানের চারা রোপণ করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

শুক্রবার(১৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলার বড় আমখোলা এলাকায় ঐ রাস্তায় ধানের চারা রোপন করেন এলাকাবাসী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দেশের স্বাধীনতা অর্জনের এত বছর কেটে গেলেও উপজেলার সোনাকাটা ও বড়বগী ইউনিয়নের সংযোগ সড়কের বড় আমখোলা টু কবিরাজপাড়া বাধঘাট পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার রাস্তার উন্নয়নে জনপ্রতিনিধিরাসহ সংশ্লিষ্টিরা কেউ কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের বার বার বলা সত্ত্বেও তারা এই রাস্তাটি যেন চোখে দেখেন না। এই সংযোগ সড়ক দিয়ে উপজেলার সাথে যোগাযোগের জন্য বিকল্প কোনও রাস্তা না থাকায় হাঁটু সমান কাদা দিয়েই চলাচল করতে হয় স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীসহ এলাকার সব মানুষের। বছরের প্রায় ৫ মাস ভোগান্তির শিকার হতে হয়। তাই ধান রোপণ করে প্রতিবাদ জানায় এলাকাবাসি।

বড় আমখোলা যুব ঐক্য পরিষদ এর সদস্য সচিব মোঃ কাওসার হাসান জিহাদ বলেন, বৃষ্টির দিনে জুতা হাতে নিয়েই ৫ কিলোমিটার রাস্তা কাদা পার হয়ে উপজেলা শহরে যাতায়াত করতে হয়। রাস্তার বেহাল দশার কারণে কৃষকরা পণ্য বাজারজাত করতে পারেনা। কয়েক যুগ কেটে যাচ্ছে কিন্তু রাস্তার কোনও উন্নয়ন নেই। চেয়ারম্যান-মেম্বাররা আসে যায় কিন্তু রাস্তার কোনও উন্নয়ন হয় না। ভোটের সময় আশ্বাস দেওয়া হলেও পরে তা ভুলে যান। আমাদের ভোগান্তি রয়েই যায়।

সোনাকাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফরাজী ইউনুচ বলেন, রাস্তাটি খুব খারাপ অবস্থায় আছে। আমি মাটির কাজ করিয়েছি। পাকা করার জন্য জোর তদবির চালাচ্ছি।আশাকরি দ্রুত রাস্তাটি পাকা হবে।

তালতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিফাত আনোয়ার তুমপা বলেন, সাধারণ মানুষের কষ্ট লাঘবের জন্য আগামী অর্থ বছরে ঐ রাস্তা পাকা করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

তালতলীতে ধানের চারা রোপণ করে রাস্তা সংস্কারের আহ্বান

আপডেট সময় : ০৪:৪৩:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩

 

মোঃ ইমরান হোসেন
বরগুনা জেলা প্রতিনিধিঃ

বরগুনার তালতলীতে সোনাকাটা ইউনিয়নের বড় আমখোলা এলাকার প্রায় ৫ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তায় চলাচলে মারাত্মক দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে কয়েক হাজার মানুষ। দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাটি পাকা করার দাবি জানালেও কোনো লাভ হয়নি। এজন্য রাস্তা পাকা না হওয়ার কারণে ধানের চারা রোপণ করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

শুক্রবার(১৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলার বড় আমখোলা এলাকায় ঐ রাস্তায় ধানের চারা রোপন করেন এলাকাবাসী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দেশের স্বাধীনতা অর্জনের এত বছর কেটে গেলেও উপজেলার সোনাকাটা ও বড়বগী ইউনিয়নের সংযোগ সড়কের বড় আমখোলা টু কবিরাজপাড়া বাধঘাট পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার রাস্তার উন্নয়নে জনপ্রতিনিধিরাসহ সংশ্লিষ্টিরা কেউ কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের বার বার বলা সত্ত্বেও তারা এই রাস্তাটি যেন চোখে দেখেন না। এই সংযোগ সড়ক দিয়ে উপজেলার সাথে যোগাযোগের জন্য বিকল্প কোনও রাস্তা না থাকায় হাঁটু সমান কাদা দিয়েই চলাচল করতে হয় স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীসহ এলাকার সব মানুষের। বছরের প্রায় ৫ মাস ভোগান্তির শিকার হতে হয়। তাই ধান রোপণ করে প্রতিবাদ জানায় এলাকাবাসি।

বড় আমখোলা যুব ঐক্য পরিষদ এর সদস্য সচিব মোঃ কাওসার হাসান জিহাদ বলেন, বৃষ্টির দিনে জুতা হাতে নিয়েই ৫ কিলোমিটার রাস্তা কাদা পার হয়ে উপজেলা শহরে যাতায়াত করতে হয়। রাস্তার বেহাল দশার কারণে কৃষকরা পণ্য বাজারজাত করতে পারেনা। কয়েক যুগ কেটে যাচ্ছে কিন্তু রাস্তার কোনও উন্নয়ন নেই। চেয়ারম্যান-মেম্বাররা আসে যায় কিন্তু রাস্তার কোনও উন্নয়ন হয় না। ভোটের সময় আশ্বাস দেওয়া হলেও পরে তা ভুলে যান। আমাদের ভোগান্তি রয়েই যায়।

সোনাকাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফরাজী ইউনুচ বলেন, রাস্তাটি খুব খারাপ অবস্থায় আছে। আমি মাটির কাজ করিয়েছি। পাকা করার জন্য জোর তদবির চালাচ্ছি।আশাকরি দ্রুত রাস্তাটি পাকা হবে।

তালতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিফাত আনোয়ার তুমপা বলেন, সাধারণ মানুষের কষ্ট লাঘবের জন্য আগামী অর্থ বছরে ঐ রাস্তা পাকা করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।