ঢাকা ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
হিলি বন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ বিরামপুর উপজেলায় ১০৩ বছরের বৃদ্ধা স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র নিলেন নাতি বৌয়ের কাঁধে ভর করে কিশোর কিশোরীর উজ্জ্বল ভবিষ্যত ও আলোকিত জীবন হিলিতে চেয়ারম্যান কাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট এর উদ্বোধন জয়পুরহাটে পুলিশ সুপার ম্যারাথন ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত পাঁচবিবিতে কোকতারা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে জানালার গ্রিল ভেঙ্গে দুধর্ষ চুরি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাক্টর দূর্ঘটনায় নিহত ২ পাঁচবিবিতে বুড়াবুড়ির মাজারে ২৫তম বাৎসরিক ওয়াজ মাহফিলের প্রস্তুতি সভা হিলি সীমান্তে দুই বাংলার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হরিপুরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

পাঁচবিবিতে ৭ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ করায় আদালতে মামলা

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১১:২০:০৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৩৮৮ বার পড়া হয়েছে

 

দবিরুল ইসলাম পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি:

জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে বিয়ের প্রলোভনে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ করায় আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা করেছে ভুক্তভোগী পরিবার। জয়পুরহাট আদালতের মামলা নং-১০৮/২০২৩।

পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা গেছে,পাঁচবিবি উপজেলার বালিঘাটা ইউনিয়নের বীরনগর গ্রামের আবু জাফরের পুত্র জাকারিয়া ইসলাম ওরফে আরিফ (২২), প্রতিবেশী হাওয়ার সুবাদে বাদিনীর কন্যার সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলে। পরে বিভিন্ন কথায় প্রলুব্ধ করে প্রেমের ফাঁদে ফেলে। ভবিষ্যতে বিয়ে করবে মর্মে আশ্বাস প্রদান করে এবং বিভিন্ন সময় তাকে কু-প্রস্তাব দেয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৫ জুলাই বিকেলে বাড়িতে একা পেয়ে বাদিনীর শিশু কন্যাকে তার শ্বয়ন কক্ষে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করতে থাকে আরিফ। এ সময় তার আত্ম চিৎকারে এলাকার লোজকন ছুটে এলে ধর্ষক আরিফ দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। মেয়ের বাবা জানান, ঘটনার সংবাদ পেয়ে তিনি মেয়েকে নিয়ে থানা পুলিশের নিকট যাওয়ার জন্য বের হলে প্রতিবেশী কয়েকজন মাতবর ও এলাকার এক নেতা মানসম্মানের ভয় দেখিয়ে তাকে বলে, স্থানীয়ভাবে রাতে বসে মিটমাট করে নেওয়া হবে। এভাবে তারা মেডিকেল পরীক্ষা করা ও আইনগত পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে কালক্ষেপন করতে থাকে। কয়েকদিন গত হওয়ার পর মাতবররা সহ ছেলের পরিবারের পক্ষ থেকে মেয়েরে বাবা ও ধর্ষিতাকে বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিতে থাকে এবং কৌশলে ধর্ষক জাকারিয়া ইসলাম আরিফকে পালিয়ে দেয়। ধর্ষিতার পরিবার নিরুপায় হয়ে ঘটনার কয়েকদিনে পরে জয়পুরহাট আদালতে মামলা দায়ের করেছে। মেয়ের মাতা জানান, তার কন্যা স্থানীয় উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানান। এ বিষয়ে ধর্ষকের পরিবারের সাথে কথা বললে তারা জানান, এসব ঘটনা সত্যি নয়, তাদের আরিফ ভালো ছেলে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, ধর্ষণ বিষয়ে তিনি কোর্ট মামলার নথি পেয়েছেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

পাঁচবিবিতে ৭ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ করায় আদালতে মামলা

আপডেট সময় : ১১:২০:০৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ অগাস্ট ২০২৩

 

দবিরুল ইসলাম পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি:

জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে বিয়ের প্রলোভনে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ করায় আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা করেছে ভুক্তভোগী পরিবার। জয়পুরহাট আদালতের মামলা নং-১০৮/২০২৩।

পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা গেছে,পাঁচবিবি উপজেলার বালিঘাটা ইউনিয়নের বীরনগর গ্রামের আবু জাফরের পুত্র জাকারিয়া ইসলাম ওরফে আরিফ (২২), প্রতিবেশী হাওয়ার সুবাদে বাদিনীর কন্যার সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলে। পরে বিভিন্ন কথায় প্রলুব্ধ করে প্রেমের ফাঁদে ফেলে। ভবিষ্যতে বিয়ে করবে মর্মে আশ্বাস প্রদান করে এবং বিভিন্ন সময় তাকে কু-প্রস্তাব দেয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৫ জুলাই বিকেলে বাড়িতে একা পেয়ে বাদিনীর শিশু কন্যাকে তার শ্বয়ন কক্ষে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করতে থাকে আরিফ। এ সময় তার আত্ম চিৎকারে এলাকার লোজকন ছুটে এলে ধর্ষক আরিফ দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। মেয়ের বাবা জানান, ঘটনার সংবাদ পেয়ে তিনি মেয়েকে নিয়ে থানা পুলিশের নিকট যাওয়ার জন্য বের হলে প্রতিবেশী কয়েকজন মাতবর ও এলাকার এক নেতা মানসম্মানের ভয় দেখিয়ে তাকে বলে, স্থানীয়ভাবে রাতে বসে মিটমাট করে নেওয়া হবে। এভাবে তারা মেডিকেল পরীক্ষা করা ও আইনগত পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে কালক্ষেপন করতে থাকে। কয়েকদিন গত হওয়ার পর মাতবররা সহ ছেলের পরিবারের পক্ষ থেকে মেয়েরে বাবা ও ধর্ষিতাকে বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিতে থাকে এবং কৌশলে ধর্ষক জাকারিয়া ইসলাম আরিফকে পালিয়ে দেয়। ধর্ষিতার পরিবার নিরুপায় হয়ে ঘটনার কয়েকদিনে পরে জয়পুরহাট আদালতে মামলা দায়ের করেছে। মেয়ের মাতা জানান, তার কন্যা স্থানীয় উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানান। এ বিষয়ে ধর্ষকের পরিবারের সাথে কথা বললে তারা জানান, এসব ঘটনা সত্যি নয়, তাদের আরিফ ভালো ছেলে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, ধর্ষণ বিষয়ে তিনি কোর্ট মামলার নথি পেয়েছেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবেন।