ঢাকা ১০:৪৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বরিশালের অর্থনীতির গতিপথ পাল্টে দিয়েছে পদ্মা সেতু  

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১২:১৬:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ জুন ২০২৩
  • / ৩৭৮ বার পড়া হয়েছে

 

মোঃ মশিউর রহমান সুমন, মেহেন্দিগঞ্জ, (বরিশাল) প্রতিনিধিঃ

পদ্মা সেতুর কারনে পাল্টে গেছে বরিশালের অঞ্চলের অর্থনীতির গতিপথ। যাতায়াত ব্যবস্থার মাইলফলক উন্নয়নে একের পর এক কারখানা গড়লে বিনিয়োগ হচ্ছে বরিশালে। সেখানে নতুন নতুন শিল্প কারখানা স্থাপনে আগ্রহী হচ্ছে উদ্যোক্তারা।
বরিশাল বিসিক শিল্প এলাকার বর্ধিত অংশে ৭৪ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পে ৩৭ একর নিচু জমি স্থায়ী করে ১১০টি প্লট করা হয়েছে। এরই মধ্যে ৩০টি প্লট বরাদ্দ নিয়েছে ব্যবসায়ীরা। এছাড়া প্রতিনিয়ত প্লট পেতে আবেদন জমা পড়ছে।

এ বিষয়ে ব্যবসায়ীরা বলেছেন,যোগাযোগের মাইলফলককে বরিশালে প্রথমবারের মতো বিসিকে পোশাক তৈরির কারখানা, বোতলজাত পানি পরিশোধনাগার ও কমফোর্টের কারখানা গড়ে উঠেছে।মাছের রাজা ইলিশ শুধু সারা দেশই নয় একদিনের মধ্যে চলে যাচ্ছে কলকাতায়।

পদ্মা সেতু হওয়ার কারনে পন্য  রফতানির দ্বার উন্মোচন হচ্ছে উল্লেখ করে এক ব্যবসায়ী বলেন, আমরা আশা করছি আমাদের ক্রয়াদেশ আরও বাড়বে ফলে আমাদের ব্যবসা আরো প্রসারিত হবে।
আরেক ব্যবসায়ী বলেন,পদ্মা সেতু হওয়ায় শুধু আমাদের বরিশাল নয় পুরো দক্ষিণ বাংলার প্রত্যেক ব্যবসায়ী উপকৃত হয়েছে। আমাদের বিসিকেও তো পর্যায় ক্রোমে অনেক উন্নয়ন হয়েছে।
তবে ভোলা থেকে পাইপলাইনের মাধ্যমে স্থানীয়ভাবে গ্যাস সরবরাহ না হলে প্রত্যাশিত শিল্প উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে বলে মনে করেন বরিশালবাসীরা।

এ বিষয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক জ্যোতিময় বিস্বাস বলেন, দক্ষিণের বঙ্গোপসাগর বা ভোলার অঞ্চলে যে গ্যাস ক্ষেত্রটি রয়েছে, সেই গ্যাস যদি দক্ষিণ বা দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চল জুড়ে ব্যবহার করা যায় তাহলে অর্থনীতির প্রবৃদ্বির গতি আরও বেশি তরান্বিত হবে।
তিনি আরো বলেন, পদ্মা সেতুর কারনে সবচেয়ে বেশি সফল হয়েছে দক্ষিণের বেকার তরুনরা। এদিকে যেমন নানা কর্মসংস্থান সৃষ্টি হচ্ছে, অন্যদিকে প্রভাব পড়ছে অর্থনীতিতেও। যোগাযোগ ব্যবস্থা আরো ভালো হওয়ার পাশাপাশি নিত্য নতুন কারখানা গড়ে উঠলে দক্ষিনাঞ্চল একসময় দেশের অর্থনীতির চালিকাশক্তি হয়ে উঠবে।

বরিশাল চেম্বার অব কর্মাসের প্রেসিডেন্ট সাইদুর রহমান রিন্টু বলেন, পদ্মা সেতুর প্রভাবে বরিশালের সামগ্রিক চিত্র পাল্টে গেছে। আমরা সব দিক দিয়ে উপকৃত হয়েছি। তবে শিল্প উন্নয়নে এখন প্রধান সমস্যা হচ্ছে বরিশালে গ্যাস।
ভোলার গ্যাস পাইপলাইনের মাধ্যমে দ্রুত বরিশালে আসবে বলে আশা করি।
তাই সরকার ব্যবসায়ীদের কথা চিন্তা করে দ্রুত এ কাজ বাস্তবায়ন করবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

পদ্মা সেতু চালুর মাত্র একবছরের মধ্যে দক্ষিণের জেলাগুলোতে অর্থনৈতিক খাতে আমূল পরিবর্তন এসেছে। প্রায় অর্ধশত শিল্প কারখানা গড়ে উঠেছে কেবল বরিশালেই। এতে হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে বলে আশা করছেন ব্যবসায়ীরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

বরিশালের অর্থনীতির গতিপথ পাল্টে দিয়েছে পদ্মা সেতু  

আপডেট সময় : ১২:১৬:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ জুন ২০২৩

 

মোঃ মশিউর রহমান সুমন, মেহেন্দিগঞ্জ, (বরিশাল) প্রতিনিধিঃ

পদ্মা সেতুর কারনে পাল্টে গেছে বরিশালের অঞ্চলের অর্থনীতির গতিপথ। যাতায়াত ব্যবস্থার মাইলফলক উন্নয়নে একের পর এক কারখানা গড়লে বিনিয়োগ হচ্ছে বরিশালে। সেখানে নতুন নতুন শিল্প কারখানা স্থাপনে আগ্রহী হচ্ছে উদ্যোক্তারা।
বরিশাল বিসিক শিল্প এলাকার বর্ধিত অংশে ৭৪ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পে ৩৭ একর নিচু জমি স্থায়ী করে ১১০টি প্লট করা হয়েছে। এরই মধ্যে ৩০টি প্লট বরাদ্দ নিয়েছে ব্যবসায়ীরা। এছাড়া প্রতিনিয়ত প্লট পেতে আবেদন জমা পড়ছে।

এ বিষয়ে ব্যবসায়ীরা বলেছেন,যোগাযোগের মাইলফলককে বরিশালে প্রথমবারের মতো বিসিকে পোশাক তৈরির কারখানা, বোতলজাত পানি পরিশোধনাগার ও কমফোর্টের কারখানা গড়ে উঠেছে।মাছের রাজা ইলিশ শুধু সারা দেশই নয় একদিনের মধ্যে চলে যাচ্ছে কলকাতায়।

পদ্মা সেতু হওয়ার কারনে পন্য  রফতানির দ্বার উন্মোচন হচ্ছে উল্লেখ করে এক ব্যবসায়ী বলেন, আমরা আশা করছি আমাদের ক্রয়াদেশ আরও বাড়বে ফলে আমাদের ব্যবসা আরো প্রসারিত হবে।
আরেক ব্যবসায়ী বলেন,পদ্মা সেতু হওয়ায় শুধু আমাদের বরিশাল নয় পুরো দক্ষিণ বাংলার প্রত্যেক ব্যবসায়ী উপকৃত হয়েছে। আমাদের বিসিকেও তো পর্যায় ক্রোমে অনেক উন্নয়ন হয়েছে।
তবে ভোলা থেকে পাইপলাইনের মাধ্যমে স্থানীয়ভাবে গ্যাস সরবরাহ না হলে প্রত্যাশিত শিল্প উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে বলে মনে করেন বরিশালবাসীরা।

এ বিষয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক জ্যোতিময় বিস্বাস বলেন, দক্ষিণের বঙ্গোপসাগর বা ভোলার অঞ্চলে যে গ্যাস ক্ষেত্রটি রয়েছে, সেই গ্যাস যদি দক্ষিণ বা দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চল জুড়ে ব্যবহার করা যায় তাহলে অর্থনীতির প্রবৃদ্বির গতি আরও বেশি তরান্বিত হবে।
তিনি আরো বলেন, পদ্মা সেতুর কারনে সবচেয়ে বেশি সফল হয়েছে দক্ষিণের বেকার তরুনরা। এদিকে যেমন নানা কর্মসংস্থান সৃষ্টি হচ্ছে, অন্যদিকে প্রভাব পড়ছে অর্থনীতিতেও। যোগাযোগ ব্যবস্থা আরো ভালো হওয়ার পাশাপাশি নিত্য নতুন কারখানা গড়ে উঠলে দক্ষিনাঞ্চল একসময় দেশের অর্থনীতির চালিকাশক্তি হয়ে উঠবে।

বরিশাল চেম্বার অব কর্মাসের প্রেসিডেন্ট সাইদুর রহমান রিন্টু বলেন, পদ্মা সেতুর প্রভাবে বরিশালের সামগ্রিক চিত্র পাল্টে গেছে। আমরা সব দিক দিয়ে উপকৃত হয়েছি। তবে শিল্প উন্নয়নে এখন প্রধান সমস্যা হচ্ছে বরিশালে গ্যাস।
ভোলার গ্যাস পাইপলাইনের মাধ্যমে দ্রুত বরিশালে আসবে বলে আশা করি।
তাই সরকার ব্যবসায়ীদের কথা চিন্তা করে দ্রুত এ কাজ বাস্তবায়ন করবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

পদ্মা সেতু চালুর মাত্র একবছরের মধ্যে দক্ষিণের জেলাগুলোতে অর্থনৈতিক খাতে আমূল পরিবর্তন এসেছে। প্রায় অর্ধশত শিল্প কারখানা গড়ে উঠেছে কেবল বরিশালেই। এতে হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে বলে আশা করছেন ব্যবসায়ীরা।