ঢাকা ০৩:২০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
হিলি বন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ বিরামপুর উপজেলায় ১০৩ বছরের বৃদ্ধা স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র নিলেন নাতি বৌয়ের কাঁধে ভর করে কিশোর কিশোরীর উজ্জ্বল ভবিষ্যত ও আলোকিত জীবন হিলিতে চেয়ারম্যান কাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট এর উদ্বোধন জয়পুরহাটে পুলিশ সুপার ম্যারাথন ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত পাঁচবিবিতে কোকতারা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে জানালার গ্রিল ভেঙ্গে দুধর্ষ চুরি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাক্টর দূর্ঘটনায় নিহত ২ পাঁচবিবিতে বুড়াবুড়ির মাজারে ২৫তম বাৎসরিক ওয়াজ মাহফিলের প্রস্তুতি সভা হিলি সীমান্তে দুই বাংলার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হরিপুরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

বরিশালে ঝড়ে গাছ পড়ে বৃদ্ধের মৃত্যু, নদীতে লঞ্চ ডুবি

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৯:৪৪:১৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৫ জুন ২০২৩
  • / ৩৯৭ বার পড়া হয়েছে

মোঃ মশিউর রহমান সুমন, বরিশাল (মেহেন্দীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

বরিশালের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া আকস্মিক ঝড়ে গাছ পড়ে এক বৃদ্ধের মৃত্যু ও এক জেলে নিখোঁজ রয়েছেন। এছাড়াও একটি যাত্রীবাহী লঞ্চের পেছনের অংশ ডুবে গেছে।

বরিশাল আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক আব্দুল কুদ্দুস জানান, আজ ভোর ৬টা ৫৫মিনিট থেকে ৭টা ১০মিনিট পর্যন্ত দমকা বাতাসের সঙ্গে মুষলধারে বৃষ্টি হয়।
এসময় একাধিক বজ্রপাত হয়। উত্তর- পশ্চিম দিক থেকে আসা ঝড়ো বাতাসের গতিবেগ ছিলো ঘন্টায় ৪৬ কিলোমিটার।বাতাস থেমে গেলে ৮টা পর্যন্ত ২৯ দশমিক ৪৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়।

আকস্মিক বাতাসে সদর উপজেলার চর বাড়ীয়া ইউনিয়নের রাঢ়ীমহল গ্রামে গাছ উপড়ে রজিত বিহারি (৭৫) নামের এক বৃদ্ব মারা গেছেন। এ তথ্য নিশ্চিত করেন, চরবাড়ীয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাহতাব হোসেন সুরুজ। তিনি জানান, রজিত বিহারি স্ত্রী সন্তানসহ ঘুমিয়ে ছিলেন। ঝড়ে ঘরের পাশে থাকা চাম্বল গাছ উপড়ে পড়ায় আঘাত পেয়ে মারা যান তিনি।তবে তার স্ত্রী ও দুই সন্তান জীবিত আছেন।

একই সময়ে হিজলা উপজেলা সংলগ্ন মেঘনা নদীতে জেলে নৌকা ডুবে নিখোঁজ রয়েছেন মাসুদ রাঢ়ী (১৮) নামের এক যুবক। তিনি উপজেলার চরকিল্লা গ্রামের কালাম রাঢ়ীর ছেলে। হিজলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ ইউছুব মিয়া বলেন, বাবা ও ছেলে একই নৌকায় মাছ ধরছিলেন। আজ সকালে আকস্মিক ঝড়ে নৌকাটি ডুবে যায়। অন্য জেলেদের সহায়তায় কালাম উদ্বার হলেও মাসুদ নিখোঁজ হন। বিকেল ৫টা পর্যন্ত তার সন্ধান পাওয়া যায়নি।

অপর দিকে ঝড়ে যাত্রীবাহী লঞ্চ এম ভি ইনজাম কাজীরহাট থানার লতানদী নামক লঞ্চঘাট এলাকায় আংশিক ডুবে যায়। এর আগেই যাত্রীরা লঞ্চ থেকে নেমে যাওয়ায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।
দৃর্ঘটনা কবলিত লঞ্চের সুকানি মোঃ নিজাম উদ্দিন বলেন, লঞ্চটি কাজীরহাট ভঙ্গা লঞ্চঘাট পৌছালে যাত্রী তুলছিলাম। হঠাৎ বৃষ্টি ও ঝড় শুরু হলে সকাল ৭টার দিকে লঞ্চটিকে চালু অবস্থায় পেছনের দিকে নেওয়ার চেষ্টা করি। কিন্তু ঝড়ের তান্ডবে লঞ্চের পেছনের অংশ লতা নদীতে ডুবে যায়। দ্রুত যাত্রীরা তীরে উঠেছেন।
এমভি ইনজাম লঞ্চে ১৫থেকে ১৭জন যাত্রী ছিলেন বলে জানান সুকানি নিজাম। তিনি বলেন, যাত্রীদের মধ্যে একজন গর্ভবতী মহিলা ও শিশু ছিল। সবাই নিরাপদে তীরে উঠেছেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কতৃপক্ষ (বি আই ডব্লিউ টি এ) বরিশালের পরিদর্শক কবির হোসেন জানান, এমভি ইনজাম বরিশালে আসছিলো। ঝড়ে পেছন দিয়ে লঞ্চটি কাত হয়ে পড়ে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

বরিশালে ঝড়ে গাছ পড়ে বৃদ্ধের মৃত্যু, নদীতে লঞ্চ ডুবি

আপডেট সময় : ০৯:৪৪:১৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৫ জুন ২০২৩

মোঃ মশিউর রহমান সুমন, বরিশাল (মেহেন্দীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

বরিশালের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া আকস্মিক ঝড়ে গাছ পড়ে এক বৃদ্ধের মৃত্যু ও এক জেলে নিখোঁজ রয়েছেন। এছাড়াও একটি যাত্রীবাহী লঞ্চের পেছনের অংশ ডুবে গেছে।

বরিশাল আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক আব্দুল কুদ্দুস জানান, আজ ভোর ৬টা ৫৫মিনিট থেকে ৭টা ১০মিনিট পর্যন্ত দমকা বাতাসের সঙ্গে মুষলধারে বৃষ্টি হয়।
এসময় একাধিক বজ্রপাত হয়। উত্তর- পশ্চিম দিক থেকে আসা ঝড়ো বাতাসের গতিবেগ ছিলো ঘন্টায় ৪৬ কিলোমিটার।বাতাস থেমে গেলে ৮টা পর্যন্ত ২৯ দশমিক ৪৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়।

আকস্মিক বাতাসে সদর উপজেলার চর বাড়ীয়া ইউনিয়নের রাঢ়ীমহল গ্রামে গাছ উপড়ে রজিত বিহারি (৭৫) নামের এক বৃদ্ব মারা গেছেন। এ তথ্য নিশ্চিত করেন, চরবাড়ীয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাহতাব হোসেন সুরুজ। তিনি জানান, রজিত বিহারি স্ত্রী সন্তানসহ ঘুমিয়ে ছিলেন। ঝড়ে ঘরের পাশে থাকা চাম্বল গাছ উপড়ে পড়ায় আঘাত পেয়ে মারা যান তিনি।তবে তার স্ত্রী ও দুই সন্তান জীবিত আছেন।

একই সময়ে হিজলা উপজেলা সংলগ্ন মেঘনা নদীতে জেলে নৌকা ডুবে নিখোঁজ রয়েছেন মাসুদ রাঢ়ী (১৮) নামের এক যুবক। তিনি উপজেলার চরকিল্লা গ্রামের কালাম রাঢ়ীর ছেলে। হিজলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ ইউছুব মিয়া বলেন, বাবা ও ছেলে একই নৌকায় মাছ ধরছিলেন। আজ সকালে আকস্মিক ঝড়ে নৌকাটি ডুবে যায়। অন্য জেলেদের সহায়তায় কালাম উদ্বার হলেও মাসুদ নিখোঁজ হন। বিকেল ৫টা পর্যন্ত তার সন্ধান পাওয়া যায়নি।

অপর দিকে ঝড়ে যাত্রীবাহী লঞ্চ এম ভি ইনজাম কাজীরহাট থানার লতানদী নামক লঞ্চঘাট এলাকায় আংশিক ডুবে যায়। এর আগেই যাত্রীরা লঞ্চ থেকে নেমে যাওয়ায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।
দৃর্ঘটনা কবলিত লঞ্চের সুকানি মোঃ নিজাম উদ্দিন বলেন, লঞ্চটি কাজীরহাট ভঙ্গা লঞ্চঘাট পৌছালে যাত্রী তুলছিলাম। হঠাৎ বৃষ্টি ও ঝড় শুরু হলে সকাল ৭টার দিকে লঞ্চটিকে চালু অবস্থায় পেছনের দিকে নেওয়ার চেষ্টা করি। কিন্তু ঝড়ের তান্ডবে লঞ্চের পেছনের অংশ লতা নদীতে ডুবে যায়। দ্রুত যাত্রীরা তীরে উঠেছেন।
এমভি ইনজাম লঞ্চে ১৫থেকে ১৭জন যাত্রী ছিলেন বলে জানান সুকানি নিজাম। তিনি বলেন, যাত্রীদের মধ্যে একজন গর্ভবতী মহিলা ও শিশু ছিল। সবাই নিরাপদে তীরে উঠেছেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কতৃপক্ষ (বি আই ডব্লিউ টি এ) বরিশালের পরিদর্শক কবির হোসেন জানান, এমভি ইনজাম বরিশালে আসছিলো। ঝড়ে পেছন দিয়ে লঞ্চটি কাত হয়ে পড়ে।