ঢাকা ০৬:৩৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিরামপুরে নদী গর্ভে বিলীন বাড়িঘর

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১১:২৬:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৩৫৪ বার পড়া হয়েছে

 

ইব্রাহীম মিঞা বিরামপুর(দিনাজপুর)প্রতিনিধিঃ

দিনাজপুরের বিরামপুরে ছোট যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নবমুসলীম মোঃ বেলালের বাড়ি ভেঙে নদীগর্ভে। এতে দিশেহারা বেলালের পরিবার।

মঙ্গলবার (৮ আগষ্ট) বিকেলে বিরামপুর পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের কৃষ্টচাদপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বিরামপুর উপজেলার মধ্যে বয়ে চলেছে ছোট যমুনা নদীর শাখা ।গত দু’দিন হালকা বারিবর্ষণের পানি বয়ে চলেছে ছোট যমুনা নদীর তীরে।কৃষ্টচাদপুর গ্রামের ছোট যমুনা নদীর তীরে নব মুসলিম বেলালের বাড়ি। অনেক কষ্টে ৭ শতাংশ জমি কিনে ঋণ করে পিলার স্থাপন করে এ বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছিল সে। থাকার বসতভিটা হারিয়ে এখন একেবারেই ভালো নেই তার পরিবার। স্থানীয়রা জানান,গত ৩ বছর আগে সে হিন্দু ধর্ম হতে মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করেন।আগে তার নাম ছিল শ্রী কমল পিতা শ্রী ধলু। মুসলিম হয়ে বিয়ে করে তার পরিবার থেকে আলাদা হয়ে ৭ শতক জমি কিনে বাড়ি নির্মাণ করে।সে হোটেলে কাজ করে তার বৌ ও একটি মেয়ে এবং শাশুরিকে নিয়ে বসবাস করে আসছে। হঠাৎ এ ভাঙ্গনের কারণে সর্বহারা তার পরিবার।এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুজহাত তাসনীম আওন এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান ভাঙনের বিষয়টি আমার জানা নেই।বিষয়টি আপনার মাধ্যমে জানলাম। সরেজমিনে পরির্দশন করে ভাঙনরোধে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

বিরামপুরে নদী গর্ভে বিলীন বাড়িঘর

আপডেট সময় : ১১:২৬:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ অগাস্ট ২০২৩

 

ইব্রাহীম মিঞা বিরামপুর(দিনাজপুর)প্রতিনিধিঃ

দিনাজপুরের বিরামপুরে ছোট যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নবমুসলীম মোঃ বেলালের বাড়ি ভেঙে নদীগর্ভে। এতে দিশেহারা বেলালের পরিবার।

মঙ্গলবার (৮ আগষ্ট) বিকেলে বিরামপুর পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের কৃষ্টচাদপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বিরামপুর উপজেলার মধ্যে বয়ে চলেছে ছোট যমুনা নদীর শাখা ।গত দু’দিন হালকা বারিবর্ষণের পানি বয়ে চলেছে ছোট যমুনা নদীর তীরে।কৃষ্টচাদপুর গ্রামের ছোট যমুনা নদীর তীরে নব মুসলিম বেলালের বাড়ি। অনেক কষ্টে ৭ শতাংশ জমি কিনে ঋণ করে পিলার স্থাপন করে এ বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছিল সে। থাকার বসতভিটা হারিয়ে এখন একেবারেই ভালো নেই তার পরিবার। স্থানীয়রা জানান,গত ৩ বছর আগে সে হিন্দু ধর্ম হতে মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করেন।আগে তার নাম ছিল শ্রী কমল পিতা শ্রী ধলু। মুসলিম হয়ে বিয়ে করে তার পরিবার থেকে আলাদা হয়ে ৭ শতক জমি কিনে বাড়ি নির্মাণ করে।সে হোটেলে কাজ করে তার বৌ ও একটি মেয়ে এবং শাশুরিকে নিয়ে বসবাস করে আসছে। হঠাৎ এ ভাঙ্গনের কারণে সর্বহারা তার পরিবার।এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুজহাত তাসনীম আওন এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান ভাঙনের বিষয়টি আমার জানা নেই।বিষয়টি আপনার মাধ্যমে জানলাম। সরেজমিনে পরির্দশন করে ভাঙনরোধে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’