ঢাকা ০২:২১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হিলিতে সাংবাদিকের সাথে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৫:১৩:০২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৩৮৬ বার পড়া হয়েছে

মোঃ রাকিব হাসান ডালিম
হাকিমপুর হিলি প্রতিনিধি

দিনাজপুরের হাকিমপুর হিলিতে সাংবাদিকের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মাহবুবুর আলমের বিরুদ্ধে। নিয়মিত অফিস করে না এই কর্মকর্তা,সেবা থেকে বঞ্চিত এলাকাবাসী। অফিসে না পেয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে সাংবাদিক মোসলেম উদ্দিনকে অকথ্য ভাষায় গালি এবং দেখে নিবো বলে হুমকি দেন এই কর্মকর্তা।
বৃহস্পতিবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে হাকিমপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে গিয়ে অফিসে ওই কর্মকর্তাকে না পেয়ে ফোন দিলে,মুঠোফোনে এসব অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন তিনি।
রাইজিংবিডি’র দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি মোসলেম উদ্দিন জানান,গত দুই সপ্তাহে ধরে কিছু তথ্য নেওয়ার জন্য উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে যাই। কিন্তু প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাকে অফিসে পাই না, তার অফিস কক্ষে তালা ঝুলানো দেখি। আবার সেবা নিতে আসা অনেক ভুক্তভোগীরা তাকে না পেয়ে ফিরে যান। বৃহস্পতিবার দুপুরে কিছু তথ্য পাবার আশায় সেই কার্যালয়ে আমি আবারও উপস্থিত হয়। ওই দিনও তিনি অফিসে আসেননি।তার অফিস কক্ষে তালা ঝুলানো। এসময় ওই কর্মকর্তাকে ফোন দিয়ে আপনি আজকেও অফিসে আসেননি। এমন কথা বলার সাথে সাথে তিনি আমার ওপর চড়াও হয়ে বলেন ফাজলামি করা বাদ দেন বেয়াদব কোথা কার। কিসের সাংবাদিক আপনি,সাংবাদিকতা শিখায় দিবো আমি। আমি অফিস করি বা না করি আপনাকে কোন কৈফিয়ত দিতে রাজি নই। আপনার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হবে।
আজ শুক্রবার জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা বরাবর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।
সাংবাদিক মোসলেম উদ্দিনকে কেন অপমান ও অপদস্ত করেছেন ? জানতে চাইলে হাকিমপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ কাজী মাহবুবুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, এটা আমার ভুল হয়ে গেছে, আমার মাথা ঠিক ছিলো না, আমি অসুস্থ ছিলাম। আমি ওই সময় দাঁতের ডাক্তারের কাছে ছিলাম। আমাকে আপনারা মাফ করে দিন। আমি তার কাছে ভুল স্বীকার করেছি। আমার লোককেও তার নিকট পাঠিয়েছি। আগামী রোববার আপনারা সবাই আমার অফিসে আসুন,চায়ের দাওয়াত রইলো।
দিনাজপুর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা (ডিএলও) কৃষিবিদ মোঃ আলতাফ হোসেন জানান,একজন সাংবাদিক প্রতিটি দপ্তরে যাবেন এবং তথ্য সংগ্রহ করে সংবাদ লিখবেন, এটাই তাদের কাজ। আমার অফিসেও তারা আসবেন, আমি অফিস না করলে আমার বিরুদ্ধেও সাংবাদিকেরা লিখবেন।
তিনি আরও বলেন, আমি এবিষয়ে আন্তরিক ভাবে দুঃখিত।আমি সব জানলাম,ওই কর্মকর্তার সমস্যা আছে। আমি উনার বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।
দিনাজপুর জেলা প্রশাসক শাকিল আহমেদ জানান,বিষয়টি ইতিমধ্যে অবগত হয়েছি। এটি একটি দুঃখ জনক বিষয়। আমি জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তাকে এবিষয়ে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করিয়েছি।
হাকিমপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জাহিদ বলেন,একজন গণমাধ্যম কর্মীকে একজন সরকারি কর্মকর্তা এভাবে আচারণ করতে পারেন না। আমি এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানায়। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিতে হবে। নতুবা আগামীতে আমরা কঠোর অবস্থানে যাবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

হিলিতে সাংবাদিকের সাথে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ

আপডেট সময় : ০৫:১৩:০২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ অগাস্ট ২০২৩

মোঃ রাকিব হাসান ডালিম
হাকিমপুর হিলি প্রতিনিধি

দিনাজপুরের হাকিমপুর হিলিতে সাংবাদিকের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মাহবুবুর আলমের বিরুদ্ধে। নিয়মিত অফিস করে না এই কর্মকর্তা,সেবা থেকে বঞ্চিত এলাকাবাসী। অফিসে না পেয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে সাংবাদিক মোসলেম উদ্দিনকে অকথ্য ভাষায় গালি এবং দেখে নিবো বলে হুমকি দেন এই কর্মকর্তা।
বৃহস্পতিবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে হাকিমপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে গিয়ে অফিসে ওই কর্মকর্তাকে না পেয়ে ফোন দিলে,মুঠোফোনে এসব অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন তিনি।
রাইজিংবিডি’র দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি মোসলেম উদ্দিন জানান,গত দুই সপ্তাহে ধরে কিছু তথ্য নেওয়ার জন্য উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে যাই। কিন্তু প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাকে অফিসে পাই না, তার অফিস কক্ষে তালা ঝুলানো দেখি। আবার সেবা নিতে আসা অনেক ভুক্তভোগীরা তাকে না পেয়ে ফিরে যান। বৃহস্পতিবার দুপুরে কিছু তথ্য পাবার আশায় সেই কার্যালয়ে আমি আবারও উপস্থিত হয়। ওই দিনও তিনি অফিসে আসেননি।তার অফিস কক্ষে তালা ঝুলানো। এসময় ওই কর্মকর্তাকে ফোন দিয়ে আপনি আজকেও অফিসে আসেননি। এমন কথা বলার সাথে সাথে তিনি আমার ওপর চড়াও হয়ে বলেন ফাজলামি করা বাদ দেন বেয়াদব কোথা কার। কিসের সাংবাদিক আপনি,সাংবাদিকতা শিখায় দিবো আমি। আমি অফিস করি বা না করি আপনাকে কোন কৈফিয়ত দিতে রাজি নই। আপনার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হবে।
আজ শুক্রবার জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা বরাবর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।
সাংবাদিক মোসলেম উদ্দিনকে কেন অপমান ও অপদস্ত করেছেন ? জানতে চাইলে হাকিমপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ কাজী মাহবুবুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, এটা আমার ভুল হয়ে গেছে, আমার মাথা ঠিক ছিলো না, আমি অসুস্থ ছিলাম। আমি ওই সময় দাঁতের ডাক্তারের কাছে ছিলাম। আমাকে আপনারা মাফ করে দিন। আমি তার কাছে ভুল স্বীকার করেছি। আমার লোককেও তার নিকট পাঠিয়েছি। আগামী রোববার আপনারা সবাই আমার অফিসে আসুন,চায়ের দাওয়াত রইলো।
দিনাজপুর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা (ডিএলও) কৃষিবিদ মোঃ আলতাফ হোসেন জানান,একজন সাংবাদিক প্রতিটি দপ্তরে যাবেন এবং তথ্য সংগ্রহ করে সংবাদ লিখবেন, এটাই তাদের কাজ। আমার অফিসেও তারা আসবেন, আমি অফিস না করলে আমার বিরুদ্ধেও সাংবাদিকেরা লিখবেন।
তিনি আরও বলেন, আমি এবিষয়ে আন্তরিক ভাবে দুঃখিত।আমি সব জানলাম,ওই কর্মকর্তার সমস্যা আছে। আমি উনার বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।
দিনাজপুর জেলা প্রশাসক শাকিল আহমেদ জানান,বিষয়টি ইতিমধ্যে অবগত হয়েছি। এটি একটি দুঃখ জনক বিষয়। আমি জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তাকে এবিষয়ে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করিয়েছি।
হাকিমপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জাহিদ বলেন,একজন গণমাধ্যম কর্মীকে একজন সরকারি কর্মকর্তা এভাবে আচারণ করতে পারেন না। আমি এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানায়। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিতে হবে। নতুবা আগামীতে আমরা কঠোর অবস্থানে যাবো।