ঢাকা ০৮:৪৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
পাঁচবিবিতে কোকতারা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে জানালার গ্রিল ভেঙ্গে দুধর্ষ চুরি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাক্টর দূর্ঘটনায় নিহত ২ পাঁচবিবিতে বুড়াবুড়ির মাজারে ২৫তম বাৎসরিক ওয়াজ মাহফিলের প্রস্তুতি সভা হিলি সীমান্তে দুই বাংলার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হরিপুরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত পাঁচবিবিতে নির্বাচনী মাঠে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোছাঃ রেবেকা সুলতানা বিরামপুরে সমতল ভূমিতে বসবাসরত ৩৫০ ক্ষুদ্র নৃ- গোষ্ঠীর মাঝে বিনামূল্যে মুরগি বিতরণ পাঁচবিবিতে আবু হোসাইন হত্যা মামলায় মা-ছেলেসহ ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড পাঁচবিবিতে বন্ধুত্বের মিলন মেলা-৯০ অনুষ্ঠিত হিলিতে দিনব্যাপি পণ্য প্রদর্শর্নী ও পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত

হিলি বাজারে মিলছেই না আমদানিকৃত কাঁচা মরিচ দেশীয় কাঁচা মরিচের দাম ফের বাড়ছে

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১২:৫৪:১৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৫ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৩৫১ বার পড়া হয়েছে

 

মোঃ রাকিব হাসান ডালিম, হাকিমপুর (হিলি) প্রতিনিধি

এক দিনেই দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে এলো ৮২ মেট্রিক টন কাঁচা মরিচ আমদানি হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় ১৪টি ট্রাকে ৮২ মেট্রিক টন কাঁচা মরিচ বন্দরে প্রবেশ করে। ভারত থেকে আমদানি বৃদ্ধি পেলেও দাম কমছে না কাঁচা মরিচের।
আজ শুক্রবার হিলি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বুধবারে দেশীয় কাঁচা মরিচ বিক্রয় হয়েছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে। আজ সেই কাঁচা মরিচ ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
খুচরা কাঁচা মরিচ ব্যবসায়ীরা জানান,যেই বন্দর দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি হচ্ছে,সেই বন্দরের বাজারে আমদানিকৃত কাঁচা মরিচ পাওয়া যাচ্ছেনা।আমদানিকারকরা বেশি লাভের আশায় নিজ খরচে ঢাকাসহ বিভিন্নস্থানে পাঠাচ্ছেন। চলতি বছরের গত ২৬ জুন থেকে ভারত থেকে আমদানি শুরু হলেও হিলি বাজারে মিলছেই না আমদানিকৃত কাঁচা মরিচ।
কাঁচা মরিচ বিক্রেতা বিপ্লব শেখ জানান,কাঁচা পণ্য সকালে বাড়ে,বিকেলে কমে। আমরা বেশি দামে কিনলেই বেশি বিক্রি করি। আবার কম দামে কিনলে কম দামেই বিক্রি করে থাকি। সরবরাহ বেশি থাকলে দাম কিছুটা কম হয়। দুই আগে কাঁচা মরিচ ৮০ থেকে ১০০ কেজিতে দরে বিক্রয় হয়েছে। আজ শুক্রবার সেই কাঁচা মরিচ ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রয় করছি।তবে সরবরাহ বৃদ্ধি পেলে দাম আরও কমে আসবে। আমরা পাঁচবিবি ও নওগাঁ থেকে এসব কাঁচা মরিচ কিনে নিয়ে আসছি।
হিলি স্থলবন্দর সূত্রে জানা গেছে,৫ টি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান ভারত থেকে ১৪ টি ট্রাকে ৮১ টন ৮৫৭ কেজি কাঁচা মরিচ স্থলবন্দরে প্রবেশ করেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এই স্থলবন্দর দিয়ে এক দিনে সর্বোচ্চ পরিমাণ কাঁচা মরিচ আমদানি হয়েছে।
হিলি স্থলবন্দরের কাঁচা মরিচ আমদানিকারকরা জানান,ভারতের বিহার থেকে এসব কাঁচা মরিচ আমদানি করা হচ্ছে। মানভেদে কাঁচা মরিচের ক্রয়মূল্য পড়েছে ৬০-৬৫ টাকা কেজি। হিলি স্থলবন্দরের শুল্ক,অন্যান্য খরচসহ প্রতি কেজির দাম পড়েছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা।
হিলি স্থলবন্দরের পানামা পোর্ট লিংকের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন প্রতাব মল্লিক জানান,আমদানিকৃত কাঁচা মরিচগুলো অধিকাংশই ঢাকাসহ বিভিন্নস্থানে পাঠান।তবে এসব কাঁচা মরিচ হিলি বন্দরের ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি হলে তাতে স্থানীয় বাজারে দাম অনেক কমে আসবে।
হিলি স্থলবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-সহকারী সংগনিরোধ কর্মকর্তা ইউসুফ আলী জানান,চলতি বছরের ২৬ জুন থেকে ৩ আগস্ট পর্যন্ত ভারত থেকে ২৮১ মেট্রিক টন কাঁচা মরিচ আমদানি হয়েছে এই বন্দর দিয়ে। কাঁচা মরিচ আমদানি অনুমতিপত্রে (আইপি) প্রতি মেট্রিক টনে ১৯৮ মার্কিন ডলার খরচ পড়েছে। পাঁচটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান এসব কাঁচা মরিচ আমদানি করেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

হিলি বাজারে মিলছেই না আমদানিকৃত কাঁচা মরিচ দেশীয় কাঁচা মরিচের দাম ফের বাড়ছে

আপডেট সময় : ১২:৫৪:১৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৫ অগাস্ট ২০২৩

 

মোঃ রাকিব হাসান ডালিম, হাকিমপুর (হিলি) প্রতিনিধি

এক দিনেই দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে এলো ৮২ মেট্রিক টন কাঁচা মরিচ আমদানি হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় ১৪টি ট্রাকে ৮২ মেট্রিক টন কাঁচা মরিচ বন্দরে প্রবেশ করে। ভারত থেকে আমদানি বৃদ্ধি পেলেও দাম কমছে না কাঁচা মরিচের।
আজ শুক্রবার হিলি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বুধবারে দেশীয় কাঁচা মরিচ বিক্রয় হয়েছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে। আজ সেই কাঁচা মরিচ ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
খুচরা কাঁচা মরিচ ব্যবসায়ীরা জানান,যেই বন্দর দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি হচ্ছে,সেই বন্দরের বাজারে আমদানিকৃত কাঁচা মরিচ পাওয়া যাচ্ছেনা।আমদানিকারকরা বেশি লাভের আশায় নিজ খরচে ঢাকাসহ বিভিন্নস্থানে পাঠাচ্ছেন। চলতি বছরের গত ২৬ জুন থেকে ভারত থেকে আমদানি শুরু হলেও হিলি বাজারে মিলছেই না আমদানিকৃত কাঁচা মরিচ।
কাঁচা মরিচ বিক্রেতা বিপ্লব শেখ জানান,কাঁচা পণ্য সকালে বাড়ে,বিকেলে কমে। আমরা বেশি দামে কিনলেই বেশি বিক্রি করি। আবার কম দামে কিনলে কম দামেই বিক্রি করে থাকি। সরবরাহ বেশি থাকলে দাম কিছুটা কম হয়। দুই আগে কাঁচা মরিচ ৮০ থেকে ১০০ কেজিতে দরে বিক্রয় হয়েছে। আজ শুক্রবার সেই কাঁচা মরিচ ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রয় করছি।তবে সরবরাহ বৃদ্ধি পেলে দাম আরও কমে আসবে। আমরা পাঁচবিবি ও নওগাঁ থেকে এসব কাঁচা মরিচ কিনে নিয়ে আসছি।
হিলি স্থলবন্দর সূত্রে জানা গেছে,৫ টি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান ভারত থেকে ১৪ টি ট্রাকে ৮১ টন ৮৫৭ কেজি কাঁচা মরিচ স্থলবন্দরে প্রবেশ করেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এই স্থলবন্দর দিয়ে এক দিনে সর্বোচ্চ পরিমাণ কাঁচা মরিচ আমদানি হয়েছে।
হিলি স্থলবন্দরের কাঁচা মরিচ আমদানিকারকরা জানান,ভারতের বিহার থেকে এসব কাঁচা মরিচ আমদানি করা হচ্ছে। মানভেদে কাঁচা মরিচের ক্রয়মূল্য পড়েছে ৬০-৬৫ টাকা কেজি। হিলি স্থলবন্দরের শুল্ক,অন্যান্য খরচসহ প্রতি কেজির দাম পড়েছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা।
হিলি স্থলবন্দরের পানামা পোর্ট লিংকের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন প্রতাব মল্লিক জানান,আমদানিকৃত কাঁচা মরিচগুলো অধিকাংশই ঢাকাসহ বিভিন্নস্থানে পাঠান।তবে এসব কাঁচা মরিচ হিলি বন্দরের ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি হলে তাতে স্থানীয় বাজারে দাম অনেক কমে আসবে।
হিলি স্থলবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-সহকারী সংগনিরোধ কর্মকর্তা ইউসুফ আলী জানান,চলতি বছরের ২৬ জুন থেকে ৩ আগস্ট পর্যন্ত ভারত থেকে ২৮১ মেট্রিক টন কাঁচা মরিচ আমদানি হয়েছে এই বন্দর দিয়ে। কাঁচা মরিচ আমদানি অনুমতিপত্রে (আইপি) প্রতি মেট্রিক টনে ১৯৮ মার্কিন ডলার খরচ পড়েছে। পাঁচটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান এসব কাঁচা মরিচ আমদানি করেছে।